Hi, Guest! Login Register

বাংলা চটি লিলির যোনিটা রসে জবজব

HomeBangla Chotiবাংলা চটি লিলির যোনিটা রসে জবজব


ঠাপাতে ঠাপাতে শরীর ঝিনঝিন করে উঠল যেন ছিড়েখুড়ে খাবে লিলির নরম যোনি। এবার আরেকটু জোরে চাপ দিলাম। পেনিসের মাথাটা ঢুকে গেল লিলির ভেজা যোনিপথে
টের পেলাম লিলির স্তনের বোঁটাগুলো শক্ত হয়ে গেছে। আঙ্গুল চালিয়ে দিলাম তার কামিজের গলা দিয়ে ভেতরে। ব্রার উপর থেকে আবারো টিপে দিলাম এক এক করে দুইটা ব্রেষ্ট। হাতের নাগালে যুবতীর যোনি। আবার হাত চালালাম তার পেট থেকে আস্তে আস্তে বুকের দিকে। এবার জামার নিচ থেকে। বুকে দুয়েকটা টিপ দিয়েই আমার হাত চলে গেল লিলির খোলা যোনিতে।
লিলির যোনিটা এমনভাবে ভিজে গেছে যে, মনে হচ্ছে পেনিস ঢুকাতে একটুও কষ্ট হবেনা। বুঝলাম সময় এসে গেছে। যা করার এখনই করতে হবে।
লিলির একটা হাত নিয়ে এগিয়ে দিলাম আমার পেনিসের দিকে। লিলি প্রথমে কিছু না করলেও পরে আস্তে আস্তে আলতোভাবে চাপ দিল আমার পেনিসের উপর। লুঙ্গির উপর থেকে প্রথমে। তারপর লুঙ্গি উঠিয়ে আমার নগ্ন বাড়ায় তার হাত বসিয়ে দিলাম। লিলি মুঠো করে ধরল আমার উত্থিত পুরুষাঙ্গ। আমার সারা শরীরে বিদু্যতের শিহরন বয়ে গেল।
আমি আস্তে করে উঠে গেলাম তার শরীরের উপর। তার জামাটা উঠিয়ে দিলাম বুক পর্যন্ত। ব্রাটাও উঠিয়ে দিলাম একটু। লিলির মসৃন বুক দুটি এখন উন্মুক্ত। আমার আঙ্গুলের আদর পাওয়ার জন্য প্রস্তুত। লিলির দুই উরুর ফাঁকে বসলাম হাঁটু গেড়ে। লুঙ্গি উঠিয়ে আমার শক্ত পুরুষাঙ্গটা ছোঁয়ালাম লিলির তপ্ত ভেজার যোনির উপর। নরম নরম লোমে ঢাকা উষ্ণ যোনি। চেরাটা এমনভাবে ভিজে আছে, গা শিরশির করে উঠল। এক হাতে পেনিসটা ধরে তার ক্লিটোরিসের উপর সামান্য ঘষা দিতেই লিলি তিরতির করে কেঁপে উঠল। বুঝলাম সে বেশ গরম হয়ে আছে। কি অদ্ভুত বোঝাপড়া! কোন কথা নেই, পূর্বপ্রস্তুতি নেই, এই অজানা জায়গায় সামান্য পরিচিত এক যুবতীকে নিয়ে মেতে উঠেছি আদিম খেলায়। শরীরের লেনদেন বুঝি এমনই!
পেনিসটা একটু ঘষেই সামান্য চাপ দিলাম লিলির যোনির ফুটো বরাবর। বেশ টাইট। ঢুকলোনা। আবার উপর নিচে ঘষলাম। আমার পেনিসের মাথাটা ততক্ষনে অজগর সাপের মত ফুঁসে উঠেছে। যেন ছিড়েখুড়ে খাবে লিলির নরম যোনি। এবার আরেকটু জোরে চাপ দিলাম। পেনিসের মাথাটা ঢুকে গেল লিলির ভেজা যোনিপথে। ভেতরে অসম্ভব তাপ। যেমন তাপ তেমন পিচ্ছিল। কোমর তুলে আরেক চাপে অর্ধেকটা ঢুকিয়ে দিলাম। এবার লিলিকে একটু সহজ করার জন্য কিছুটা ঝুঁকে তার বুকে হাত দিলাম আবার। বুক দুটো টিপছি। আলতো কিন্তু দৃঢ়তার সাথে। নিপল নিয়ে খেলছি। আমার বেয়াইন লিলির যুবতী ডাঁসা বুক। কোমর উঁচু করে আরেক চাপ। একদম লিলির গভীরে। আহ! এমন নরম যোনি! রসে জবজব করছে।

ঠাপাতে শুরু করলাম আস্তে আস্তে। শরীরে আগুন লেগে গেছে। ঝুঁকে গিয়ে লিলির গালে চুমু খেলাম। সে তার গালটা আমার ঠোঁটে লাগিয়ে দিল একটু। যেন বলছে, চুমু খাও।
আস্তে আস্তে ঠাপ দিয়ে চলেছি আর লিলির ঘাড়ে, গলায়, গালে চুমু খাচ্ছি। এমন টাইট তার যোনি, প্রতি ঠেলায় ঠেলায় আমার পেনিসটাকে যেন কামড়ে কামড়ে ধরছে। টের পেলাম আমার পেনিসের চারপাশে তার যোনির ঠোঁট দুটি শক্তভাবে আঁকড়ে ধরে রয়েছে। যেন ছাড়বেনা। যেন বলছে, ঢোকাও! আমার রসালো যোনিতে তোমার পুরুষাঙ্গ ঢোকাও। যুবতীর সাথে সেঙ্ করার মজা নাও। লিলির প্রতিক্রিয়া টের পেলাম। সে আমার কোমর জড়িয়ে ধরেছে আলতো করে। উরু দুটি আরেকটু ফাঁক করে দিয়ে আমাকে সাহায্য করছে।
আমি ঠাপের গতি বাড়িয়ে দিলাম। দুজনের নিশ্বাস দ্রুত হচ্ছে। ঠাপের পর ঠাপ লাগালাম। প্রতি ঠাপে কেঁপে কেঁপে উঠছিল লিলি। বুঝতে পারছিলাম সেও অসম্ভব গরম হয়ে গেছে। এবার মুখ নামিয়ে দিলাম লিলির বুকে। বাম ব্রেষ্টটিতে চুমু খেয়ে ডান ব্রেষ্ট মুখে পুরে নিলাম। চুষছি আর ঠাপও চলছে। গতি বাড়ছে। জোরে করার সুযোগ নেই। আশেপাশে অনেক লোক। তবে ঠাপ যেটুকু দিচ্ছি বেশ ঠেসে ঠেসে ঢুকাচ্ছি।
বিয়ের ব্যস্ততার কারনে অনেকদিন হস্তমৈথুন করা হয়নি। বীর্যথলি ভর্তি হয়ে আছে। তাছাড়া অতিরিক্ত উত্তেজনা আর অস্থিরতার কারনে বুঝতে পারলাম আমার হয়ে যাবে। ঠাপের গতি কমিয়ে লিলির দুটি ব্রেষ্টই চুষলাম একের পর এক। এবার লিলি আমার কোমর থেকে হাত সরিয়ে নিয়ে এল আমার মাথায়। আমার মুখটা চেপে ধরল তার বুকের উপর। আমি চুষে চলেছি। ঠাপাচ্ছি আবারও জোরে, লিলির একদম গভীরে। আমার অন্ডকোষ দুটো প্রতি ঠাপে ঠাপে লিলির পাছার ফুটোর উপর আছড়ে আছড়ে পড়ছে।
নিশ্বাসের গতি বাড়ছে, বাড়ছে ঠাপের গতিও। লিলি আমার মাথাটা এবার আরো জোরে তার বুকের উপর চেপে ধরেছে। মৃদুভাবে কামড় বসিয়ে দিলাম তার নরম ব্রেষ্টের উপর। আবার চুষছি। এবার ঠাপের গতি পুর্নতা পেল। জোরে জোরে ঠাপাতে ঠাপাতে ভাবছি বীর্য ঢালব কোথায়? উপায় নেই বৎস!
ঠাপাতে ঠাপাতে শরীর ঝিনঝিন করে উঠল। তলপেট ভারি হয়ে গেছে। অসম্ভব চাপ। লিলির ভেজা টাইট যোনির গভীরে আমার উত্থিত পুরুষাঙ্গটা ঠেসে ঠেসে আরো কয়েকটা ঠাপ দিয়ে দ্রুত বের করে আনলাম তার পেটের উপর। হড়হড় করে ঢেলে দিলাম অনেকদিনের জমানো বীর্য। লিলি কেঁপে কেঁপে উঠল যখন আমার বীর্যগুলি তার পেটের উপর পড়ছিল। লিলি হাত বাড়িয়ে তার পাজামাটা নিয়ে পেট মুছে নিল। আমি নেমে গেলাম। তার পাশে শুয়ে পড়েছি। খুব ভাল লাগছে। নতুন বেয়াইনের সাথে নতুন খেলা খেললাম। তাও কোন কথাবার্তা ছাড়া, কোন পুর্বপরিকল্পনা ছাড়া, কোনরকম আন্ডারস্ট্যান্ডিং ছাড়া। দারুন লাগছে। লুঙ্গি দিয়ে পেনিস মুছে নিয়ে লিলিকে জড়িয়ে ধরে শুয়ে পড়লাম। সারাদিনের ক্লান্তি, বীর্যস্খলনের পরিতৃপ্তি নিয়ে কখন ঘুমিয়ে পড়েছি বুঝিনি।
সেদিনকার মত শেষ হলেও লিলিকে নিয়ে আমার জীবনে নতুন অধ্যায়ের সুচনা হলো তখন থেকেই

Share this post on Social Network:
Google+ Pinterest

About Author

Total Posts [56]

› Total Post: [56]
› যদি মানুষ হও তবে কিছু কর। নিজে শিখুন অপরকে শিখান।

Leave a Reply

You Must be Login or Register to Submit Comment.

Developed by MD Abdullah | Copyright 2016-17 TipsMela.Com